ঢাকা শনিবার, ২৩শে জানুয়ারী ২০২১, ১০ই মাঘ ১৪২৭


পাখির ভালোবাসায় গাইবান্ধায় গাছে গাছে অভয়াশ্রম


পাখির ভালোবাসায় গাইবান্ধায় গাছে গাছে অভয়াশ্রম

প্রভাত ফেরী: কালের আবর্তে বাংলাদেশের পাখপাখালি এখন হারিয়ে যাচ্ছে। উধাও হয়ে যাচ্ছে পাখির কলরবও। নিরাপদ আশ্রয় প্রয়োজনীয় খাদ্যের অভাবে পাখির সংখ্যা দিন দিন কমের দিকেই যাচ্ছে। পাখি নিধন রোধ, পাখির নিরাপদ বিচরণ নিশ্চিত পাখির প্রতি ভালোবাসায় গাছে গাছে মাটির হাঁড়ি বেঁধে পাখির জন্য আশ্রয়কেন্দ্র তৈরি করে ভালোবাসার এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে গাইবান্ধার কয়েকজন যুবক। নিজেদের অর্থ খরচ করে তারা গাছে গাছে মাটির কলসি বেঁধে পাখির অভয়াশ্রম গড়ে তুলেছে।



ন্যাচার অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট প্রিজারভেশন অর্গানাইজেশন নিপোনামে সংগঠনের নামে তারা এই ভালোবাসার কাজটি ছড়িয়ে দিচ্ছে সব জায়গায়।



হারানো পাখি প্রকৃতিতে ফিরিয়ে আনতে এবং প্রকৃতি-পরিবেশ সংরক্ষণে পাখির জন্য নিরাপদ বাসা তৈরিতেন্যাচার অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট প্রিজারভেশন অর্গানাইজেশন নিপোনামে সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুককানুপুর ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামের যুবক আহম্মদ উল্যাহ। তার সাথে আরো ৩০জন সহপাঠি। তারা সবাই মিলে গাইবান্ধার বিভিন্ন এলাকায় পাখি এবং প্রকৃতি পরিবেশ সংরক্ষণে নিবেদিতভাবে কাজ করছে।



সাম্প্রতিক সময়ে অবাধ বৃক্ষনিধনের কারণে পাখিরা তাদের নিরাপদ আবাসস্থল হারিয়েছে এবং খাদ্যসংকটের কবলে পড়েছে। ফলে পাখিদের স্বাভাবিক প্রজনন বিঘ্নিত  হচ্ছে। এছাড়া গ্রামগঞ্জের নতুন প্রজন্মের মানুষ পাখিদের প্রতি যথেষ্ট সংবেদনশীল না হওয়ায় ব্যাপক হারে মারা যাচ্ছে পাখিরা। এছাড়া ফসল উৎপাদনে বিষাক্ত কীটনাশকের প্রবণতা বৃদ্ধি পাওয়ায় পাখিদের মৃত্যুর হারও বেড়েছে।



এই প্রতিকূল অবস্থা থেকে পাখিদের রক্ষায় তাই এগিয়ে এসেছে নিপো এবং তার সদস্যরা। তারা তালুককানুপুর ইউনিয়ন এবং পার্শ্ববর্তী সমসপাড়া, ফকিরপাড়া, কবিরাজপাড়া, কাপাসিয়া, ছোটনাগবাড়ি গ্রামে তাদের কার্যক্রম শুরু করে।



সম্পূর্ন নিজেদের খরছে কয়েখটা গ্রামে পাখিদের জন্য প্রায় দুহাজার কলস স্থাপন করেছে তারা। পর্যন্ত গোবিন্দগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় গাছে মাটির হাঁড়ি, কলস স্থাপন গাছের শাখায় গর্ত করে ছোট ছোট মাটির পাতিল বসিয়ে প্রায় হাজার পাখির নিরাপদ আশ্রয়স্থল গড়ে তোলা সম্ভব হয়েছে বলে জানায় আহম্মদ উল্যাহ।



কাজের জন্য এই পরিবেশবাদী সংস্থা নিপো এবং আহম্মদ উল্যাহ রাজশাহী বিভাগীয় পরিবেশক পদক, পরিবেশ বন মন্ত্রণালয় থেকে জাতীয় পরিবেশ সংরক্ষণ সনদপত্র, জাতীয় পরিবেশ স্বর্ণপদক সনদপত্র এবং জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডসহ একাধিক পদক সনদপত্র পেয়েছে।



 জীববৈচিত্র্য রক্ষায় পাখি সংরক্ষণে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার কোনো বিকল্প নেই। তাই আহম্মদ উল্যাহ তার সংগঠন নিপো এবং নিপোর সদস্যদের শুধু একটিই চাওয়া দেশীয় পাখি সংরক্ষণের জন্য সরকারিভাবে উদ্যোগ নিতে হবে। বাড়ির আঙিনায় বেশি করে গাছ লাগানোর পাশাপাশি পাখি শিকার বন্ধ করতে হবে। রাসায়নিক সার কীটনাশকে যেন পাখির ক্ষতি না হয় সেটিও নিশ্চিত করতে হবে।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top